ঢাকাবুধবার , ১২ আগস্ট ২০২০
  1. অনান্য
  2. অপরাধ ও আইন
  3. অভিবাসীদের নির্মম জীবন
  4. অর্থনীতি
  5. আত্মসাৎ
  6. আন্তর্জাতিক
  7. ইতিহাস
  8. উদ্যোক্তা
  9. এশিয়া
  10. কৃষি
  11. ক্যাম্পাস
  12. খেলাধুলা
  13. গণমাধ্যম
  14. গল্প ক‌বিতা
  15. চট্টগ্রাম বিভাগ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সৌদি আরবের সাবেক গোয়েন্দা প্রধান ও নিরাপত্তা উপদেষ্টা ড. সাদ আল-জাবরির ছেলে-মেয়েকে কারাবন্দী অথবা হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক
আগস্ট ১২, ২০২০ ৮:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কানাডায় পলাতক সাবেক এক সৌদি গোয়েন্দা কর্মকর্তার দায়ের করা মামলায় সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে (এমবিএস নামেই গণমাধ্যমে পরিচিত) আদালতে হাজির হওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।

সাবেক গোয়েন্দা এ কর্মকর্তা অভিযোগ করেছেন, তিনি একটি ব্যর্থ হত্যাচেষ্টার টার্গেট ছিলেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে?
ওয়াশিংটন ডিসিতে দায়ের করা ১০৬ পৃষ্ঠার অপ্রমাণিত অভিযোগপত্রে অভিযোগ তোলা হয় যে মি. জাবরির মুখ বন্ধ করার উদ্দেশ্যে তাকে হত্যা করার নির্দেশ দেন সৌদি যুবরাজ।
নথি অনুযায়ী, ‘টাইগার স্কোয়াড’ নামের পেশাদার হত্যাকারীদের একটি দল পাঠানো হয়েছিল মি. জাবরিকে হত্যা করতে।
মি. জাবরির ভাষ্য অনুযায়ী, তার কাছে থাকা ‘সংবেদনশীল তথ্যে’র কারণে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।
২০১৮ সালে ইস্তান্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে সাংবাদিক জামাল খাসোগজি হত্যায়ও টাইগার স্কোয়াডের সদস্যরা যুক্ত ছিলেন বলে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পেশ করা নথিতে।

সাদ আল-জাবরির বড় ছেলে খালিদ অভিযোগ করেছেন, তার বাবাকে সৌদি আরব ফিরিয়ে নিয়ে শাস্তি দিতে দুই ভাই-বোনকে জিম্মি করা হয়েছে। তাদের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তাদেরকে মেরে ফেলা হয়েছে নাকি এখনও জীবিত রয়েছে সে সম্পর্কে কিছুই জানেন না তারা।
খালিদ বলেছেন, মার্চে তাদের রিয়াদের বাড়ি থেকে নিরাপত্তা কর্মকর্তারা ২১ বছর বয়সী ভাই ওমর ও ২০ বছর বয়সী বোন সারাহকে তুলে নিয়ে গেছে। তিনি বলেন, “গত ১৬ মার্চ ভোরে ২০টি গাড়ি করে আসা ৫০ জনের মতো নিরাপত্তা কর্মী ওমর ও সারাহকে বিছানা থেকে তুলে অপহরণ করেন। আমাদের রিয়াদের বাড়িতে অনুসন্ধান চালানো হয়েছে, সিসিটিভির মেমোরি কার্ড সরিয়ে ফেলা হয়েছে।”
খালিদ বর্তমানে বাবার সঙ্গে কানাডায় রয়েছে। ড. সাদের এই ছেলের ধারণা, তার বাবাকে সৌদি আরব ফেরাতে দরকষাকষির গুটি হিসেবেই তার দুই ভাইবোনকে আটক করা হয়েছে। সৌদি আরব ফেরার পরপরই ড. সাদকে হত্যা করা হবে বলে অনুমান তার স্বজনদের।
ড. জাবরি সৌদি আরবের সাবেক যুবরাজ নায়েফের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সম্প্রতি তিনি আমেরিকার একটি আদালতকে জানিয়েছেন, সৌদি যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমান তাকে হত্যার জন্য কানাডায় ঘাতক দল পাঠিয়েছিলেন, কিন্তু তারা বিমান বন্দরে ধরা পড়ায় তিনি বেঁচে গেছেন।আল-জাবরি কানাডায় খুবই সুরক্ষিত অবস্থায় বসবাস করছেন।পুলিশ ছাড়াও তার প্রহরায় নিয়োজিত আছে বেসরকারি নিরাপত্তারক্ষীরা। মার্কিন গোয়েন্দা সম্প্রদায়ের সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে এবং রাজপুত্রের গোপন কার্যকলাপ সম্পর্কে গভীর জ্ঞান রাখেন এই কর্মকর্তাটি। এ কারণেই উচ্চাকাঙ্খী রাজপুত্রের প্রধান লক্ষ্যে পরিণত হয়েছেন তিনি।
ইতোপূর্বে, সৌদি আরব সাদ আল-জাবরিকে ফেরত পাওয়ার জন্য ইন্টারপোলের কাছে রেড অ্যালার্ট জারির নোটিশ পাঠায়। তবে ইন্টারপোল বিষয়টিকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে প্রত্যাখ্যান করেছে। সৌদি কতৃর্পক্ষ কানাডার প্রতিও জাবরিকে দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছে। তারা উচ্চপদস্থ এই গোয়েন্দা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছে।

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল অপরাজিতবাংলা ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন oporajitobangla24@yahoo.com ঠিকানায়।